সাতক্ষীরায় ছেলেকে উদ্ধারের দাবিতে বৃদ্ধ মায়ের সংবাদ সম্মেলন


আব্দুর রশিদ, সাতক্ষীরা জেলা ক্রাইম রিপোর্টার
প্রকাশের সময় : জুলাই ৮, ২০২৪ । ৭:২৮ অপরাহ্ণ
সাতক্ষীরায় ছেলেকে উদ্ধারের দাবিতে বৃদ্ধ মায়ের সংবাদ সম্মেলন

সাতক্ষীরা শহরের বাটকেখালী এলাকার আব্দুল্লাহ খোকন কর্তৃক ছেলে আব্দুল জলিলকে অপহরণ, গুম করার প্রতিকার ও গুমকৃত ছেলেকে উদ্ধারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে জরিনা বেগম (৭০) নামের এক বৃদ্ধ মা। রবিবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের আব্দুল মোতালেব মিলনায়তনে উপস্থিত হয়ে এই সংবাদ সম্মেলন করেন শহরের বাটকেখালী এলাকার মৃত: জিয়াদ আলীর স্ত্রী জরিনা বেগম।

লিখিত বক্তব্যে জরিনা বেগম বলেন, আমি একজন স্বামী পরিত্যক্তা ও বয়োবৃদ্ধ নারী। অত্যান্ত দুঃখ ভরাক্রান্ত মন নিয়ে জানাচ্ছি যে, পরিবারে আর্থিক অভাব অনটন থাকায় আমাদের একই গ্রামের হযরত আলীর পুত্র আব্দুল্লাহ খোকন আমার নাবালক পুত্র আব্দুল জলিলকে তার কাঁচামালের আড়তে কাজে দিতে বললে আমরা তার প্রস্তাবে রাজি হয়ে আমার পুত্র আব্দুল জলিলকে গত ২০০০ ইং সালে সাতক্ষীরা বড় বাজারে কাঁচামালের আড়তে দৈনিক মজুরী ভিত্তিতে কাজে দেই। সেখান থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত আমার পুত্র তার আড়তে কাজ করে রাতে বাড়িতে ফিরে আসত। হঠাৎ করে ২০০৪ সালের পর সে আর বাড়িতে ফিরে আসে নি। তার বাড়িতে ফিরে না আসার কয়েকদিন গত হলে আমি ও আমার পরিবারের অন্য সদস্যরা আব্দুল্লাহ খোকনের কাছে আমার পুত্র আব্দুল জলিলের বিষয়ে জানতে চাইলে আব্দুল্লাহ খোকন বলেন, আমার পুত্রকে আড়তের কাঁচামাল আনার জন্য জেলার বাইরে পাঠিয়েছে। এভাবে দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলে আমি আমার পুত্রের সন্ধানে আব্দুল্লাহ খোকনের দ্বারস্থ হলে তিনি আবারো বলেন আমার পুত্র বাইরে কাজে আছে। আব্দুল্লাহ খোকনের সাথে তার যোগাযোগ আছে। সে কোথায় আছে তার ঠিকানা চাইলে আব্দুল্লাহ খোকন বলেন তোমাদের ছেলে ঠিকানা দিতে নিষেধ করেছে। এরপর গত ২০০৬ সালে আব্দুল্লাহ খোকন জানায় আমার পুত্র জেলার বাইরে বিয়ে করে সেখানে বসবাস করছে। আব্দুল্লাহ জানায়, আমার পুত্রের সংসারে ২০০৯ সালে একটি পুত্র সন্তান জন্ম নিয়েছে। তার ২/৩ বছর পরে আরেকটি পুত্র সন্তান হয়। তাদেরকে আব্দুল্লাহ খোকন দেখে এসেছে।

তিনি আরো বেলন, আব্দুল্লাহ খোকন দিনে পর দিন টালবাহানা করে আমার পুত্রকে ফিরিয়ে দেয়নি। পরে আমরা জানতে পারি আমার পুত্র আব্দুল জলিলের নিকট থেকে আব্দুল্লাহ খোকন ২০০২ সালে ২ শতক ও ২০০৩ সালে ৫ শতক জমি লিখে নেয়। বিষয়টি জানতে পেরে আমরা আব্দুল্লাহ খোকনের সাথে যোগাযোগ করলে সে জানায়, আব্দুল জলিল আমার কাছে জমি বিক্রি করেছে। আমার পুত্র আব্দুল জলিলের জন্ম তারিখ ১০ আগস্ট‘১৯৮৮ ইং। ২০০২-২০০৩ সালে তার বয়স ছিল মাত্র ১৪ বছর। নাবালকের কাছ থেকে আব্দুল্লাহ খোকন কিভাবে জমি কিনে নিল? দীর্ঘ ২০ বছর আব্দুল জলিল বাড়িতে আসেনি। আমরা সাম্ভাব্য সকল জায়গায় খোজাখুজি করেও তার কোন সন্ধান পাই নি। আমার ও আমার পরিবারের সন্দেহ উক্ত আব্দুল্লাহ খোকন আমার পুত্র আব্দুল জলিলের কাছ থেকে প্রতারণা করে জমি লিখে নিয়ে তাকে অপহরণ ও গুম করেছে। আমি বর্তমানে বার্ধক্যজনিক অসুস্থতায় ভুগছি।

তিনি আব্দুল্লাহ খোকনের শাস্তি ও তার জিম্মা থেকে পুত্রকে উদ্ধারের দাবীতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন।

পুরোনো সংখ্যা

শনি রবি সোম মঙ্গল বু বৃহ শুক্র
 
১০১১
১৩১৫১৬১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭৩০৩১