প্রেমিকের বিরহের ব্যাকুলতা 


জাহাঙ্গীর হোসেন 
প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারি ১, ২০২৪ । ১:৪৫ অপরাহ্ণ
প্রেমিকের বিরহের ব্যাকুলতা 
ব্যাকুলতা
ওগো তুমি ছাড়া
মোর যত রূপ  যত রস
ওগো তুমি ছাড়া শূন্য জীবন
জীবন মোর শূন্যতার বশ।
ওগো স্বামী গ্রহণ করছি তোমায়
এ জীবন যৌবন সব দান করে আমি।
তোমার কারনে আমি রসে ভরপুর
তোমার আলিঙ্গনে হয় সব ব্যথা দূর ;
ওগো স্বামী
খোঁপার ফুল মোর ঝরার আগে ঝরে
চুল সব এলো-মেলো বেণী যায়  খুলে ;
চোখের দেখা আমি দেখতে না পাই
যে পাশে থাকে সেও যেন  নাই।
ওগো স্বামী
মোর যত রস,যত রূপ
সব মোরে ব্যথা দেয়
 না থাকলে পাশে তুমি।
পাখির গান সব বেসুরো লাগে
ভোরের শিশির আঘাত করে
জোস্না রাত হয়  যন্ত্রনাময়
যত চাওয়া-পাওয়া মোর সব বৃথা হয়
কলঙ্কিনী না হয়েও মানুষ কলঙ্কিনী কয়!
বলো এতো জ্বালা কোন মানবির সয়?
ওগো স্বামী
যদি কিছুই না দেও তুমি
করবোনা জোর তোমারে
এতটুকু দাওগো কথা
যে রূপ তোমার জন্য, যে রস তোমার লাগি
আমার সবের মাঝে তুমি হবে সমভাগি।
স্পর্শে স্পর্শে ব্যস্ত করে তুলো মোরে
দিওনা কোনো বিশ্রাম -বিরতি
শুধু এতোটুকু দাওগো মোরে যা মোর অনুভূতি।
যেভাবে চাও মোরে সেভাবে নাও
যন্ত্রণা দেয়ার ইচ্ছে
বুকে টেনে তাও মোরে দাও।
যেমন করে ভ্রমর ফুলের মধু খায়
যেমন করে নদী প্রবাহিত হয়
যেমন করে আগুন পোড়ায় কাঠেরে
তেমনি করে তুমি পোড়াও মোরে।
ওগো স্বামী
জানি গো, তুমি মোর সব অধিকার
তুমি অহংকার, তুমি কণ্ঠ্যহার
কাঁটায় কাঁটায় তুমি কন্টকময়
ঐ কাটার জ্বালা মোর সুখে পরিণত হয়
থাকলে পাশে তুমি।
ওগো স্বামী দিয়েছি আমি তোমায় আমার
যা ছিল  দেয়ার।
কাকারবে কাকগুলো করে হাহাকার
ফুলের সুগন্ধ আজ দুর্গন্ধের মত
গ্রীষ্মকালে আজ লেপ জড়িয়ে থাকা
জানো কেন
শুধু তোমার জন্য স্বামী।
আজ আমার সবকিছু বিপরীত মনে হয়
আকুল ব্যাকুল স্বরে ডাকি আমি তারে
যে মোর স্বামী যার বাস এই অন্তরে।
ওগো তুমি মোর সেই
যে ছাড়া পৃথিবীতে কেউ মোর নেই।
ওগো স্বামী আর যা কর তুমি
শত যন্ত্রণা দিয়েই বুকে রেখো মোরে
এই কামনাই করি আমি।
মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন
প্রভাষক (বাংলা)
গঙ্গাচড়া সরকারি কলেজ, গঙ্গাচড়া, রংপুর

পুরোনো সংখ্যা

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯