সর্বশেষ :

বঙ্গবন্ধুর কন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনার হাতেই বাংলাদেশ নিরাপদ : এমপি সমি সিদ্দিকী


আনোয়ার হোসেন, ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি
প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ৬, ২০২৩ । ৭:০৬ অপরাহ্ণ
বঙ্গবন্ধুর কন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনার হাতেই বাংলাদেশ নিরাপদ : এমপি সমি সিদ্দিকী

স্বাধীনতার মহান স্থপতি হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার হাতেই বাংলাদেশ নিরাপদ। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে ঝিনাইদহ-২ (হরিনাকুন্ডু) আসনের মাননীয় জাতীয় সংসদ সদস্য তাহজিব আলম সিদ্দিকী সমি তার নির্বাচনী এলাকার গণমানুষের সাথে ছোট ছোট বৈঠকে উপরোক্ত উক্তি প্রকাশ করেন।

 

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী সমি সিদ্দিকী বলেন, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার সুদৃঢ় নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে অবস্থান করছে। একটি সমৃদ্ধশালী উন্নয়ন অগ্রগতির বাংলাদেশ গড়তে তিনি নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। দীর্ঘ সময় আওয়ামী লীগ সরকার রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত আছেন বিধায় আজ দেশের ব্যাপক উন্নয়ন অগ্রগতি সাধিত হয়েছে, যা বিগত দিনের কোন সরকারের আমলে এরকম উন্নয়ন হয়নি। বিএনপি জামায়াত জোট সরকার বাংলাদেশকে বিশ্ব দরবারে দূর্নীতিতে পাঁচ-পাঁচবার চ্যাম্পিয়ন করেছিল সেই বাংলাদেশই এখন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মধ্যম আয়ের দেশের মর্যাদায় অধিষ্ঠিত হয়েছে।

 

স্বপ্নের পদ্মাসেতু, বঙ্গবন্ধু ট্যানেল নির্মাণের কারণে বিশ্ববাসী বাংলাদেশকে সম্মানজনক দৃষ্টিতে দেখেন। রুপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনেও দেশ বহির্বিশ্বের মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা ডিজিটাল বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছেন এখন স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে রূপকল্প ২০৪১ ঘোষণা করেছেন। দেশের মানুষ এখন বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, শিক্ষা ভাতা, উপবৃত্তির ব্যবস্থা, ভিক্ষুক পূর্নবাসন, মাতৃত্বকালীন ছুটির ব্যবস্থা, প্রসবকালীন মায়ের জন্য অতিরিক্ত অর্থপ্রদান, বেকার যুবকদের সহস শর্তে ঋণপ্রদানের মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টি, নারীদের স্বাবলম্বী করতে বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা ও তাদের মাঝে সেলাইমেশিন প্রদান, সুবিধাবঞ্চিত গরীব অসহায় মানুষেরা ১৫ টাকা কেজিতে চাউল ঘরে বসেই পাচ্ছেন। বছরের ১ লা জানুয়ারীতে ছাত্র-ছাত্রীদের হাতে নতুন বই তুলে দিচ্ছেন সরকার যা বিগত দিনের কোন সরকার কল্পনাও করতে পারেনি। কোন ছাত্র-ছাত্রীকে এখন পড়ালেখা করার জন্য বেতন দিতে হয় না। ঢাকার রাজপথের উপর দিয়ে চলছে মেট্রোরেল, উড়ালসেতু দিয়ে চলছে যানবাহন তাতে করে মানুষের জীবন যাত্রার মান বেড়েছে বহুগুণ। জাতীয় বিমান বন্দরের নান্দনিক  তৃতীয় টার্মিনাল তৈরির ফলে বিদেশ গমনে যাত্রীদের আর দীর্ঘ সময় লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে না। পদ্মাসেতুর দুপাশে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু মহাসড়ক তৈরি করার ফলে দুপাশের মানুষেরা সহজেই তাদের যাতায়াত করতে পারছে আর এসব সম্ভব হয়েছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার সুদৃঢ় নেতৃত্বেই। বৈশ্বিক মহামারী করোনাকলীন সময়ে বিশ্ববাসী যখন তাটমাটাল অবস্থায় দিশেহারা তখন  বাংলাদেশের মানবিক  প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা দেশের একটি পরিবারকেও অভুক্ত রাখেননি, সারা দেশে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মাধ্যমে নিয়মিত কর্মহীন ঘরবন্দী গরীব অসহায় মানুষের বাড়ি বাড়ি নগদ অর্থ ও ত্রাণ পৌঁছে দিয়েছেন। দেশের মানুষ যখন সুখে শান্তিতে বসবাস করছেন তখন বিএনপি জামায়াত শিবিরের সন্ত্রাসীরা দেশে আগুন সন্ত্রাস সৃষ্টি  করে গাড়িতে পেট্রোল বোমা মেরে জনমনে ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি করার পায়তারা করছে। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যেখানে ৩০টি নিবন্ধনকৃত রাজনৈতিক দল অংশগ্রহণ করছেন তখন তারা নির্বাচনে না এসে অবৈধ হরতাল অবরোধ ডেকে জনজীবনে দুর্ভোগ সৃষ্টি করছেন যা বাংলাদেশের শান্তিপ্রিয় জণগণ ঘৃণা ভরে প্রত্যাখান করছে। জনবিচ্ছিন্ন বিএনপি জামায়াত জোট যখন নির্বাচনে তাদের চরম ভরাডুবির আশংকা ঠিক তখনই তারা নানা রকম ষড়যন্ত্র করে নির্বাচন বন্ধের নীলনকশায় মাতোয়ারা। বাংলাদেশের মানুষের মৌলিক চাহিদা পূরণে  সক্ষম বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে নানা রকম ষড়যন্ত্র করে বিদেশিদের দুয়ারে-দুয়ারে ঘুরছেন এবং দেশবিরোধী যড়যন্ত্র করছে।বাংলাদেশের মানুষ এখন উৎসব মুখর ভাবে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আগামী ৭ জানুয়ারী ভোটে উন্নয়ন অগ্রগতির মার্কা নৌকায় ভোট দিয়ে পূণরায় আওয়ামী লীগ সরকারকে ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত করতে পহর গুণছে। আর অন্য দিকে বিএনপি জামায়াত শিবিরের সন্ত্রাসী বাহিনীরা নির্বাচন বানচাল করতে বিভিন্ন ধরনের নাশকতা ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে। ঝিনাইদহ-২ আসনের শান্তি প্রিয় জনগণের মাঝে অশান্তি সৃষ্টি করলে আমাদের আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তা কঠোর হস্তে দমন করবেন বলে হুশিয়ারী উচ্চারণ করেন এম পি সমি সিদ্দিকী।

 

স্থানীয়রা জানান, ঝিনাইদহ হরিনাকুন্ডুবাসী এমন একজন প্রার্থী এম পি হিসেবে পেয়েছেন যার বাবা বীরমুক্তিযোদ্ধা  নূরে আলম সিদ্দিকী  ছিলেন বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর, চার খলিফার একজন, স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম পতাকা উত্তোলনকারী স্বাধীন ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সভাপতির সুযোগ্য সন্তান তাহজিব আলম সমি সিদ্দিকী। যার শরীরেই মিশে আছে দেশপ্রেমীকের রক্ত। সমি সিদ্দিকী একজন সফল জনপ্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচিত হয়ে নিজ নির্বাচনী এলাকায় স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা রাস্তা ঘাটের ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন যার কারণে এবারের সংসদ নির্বাচনেও ঝিনাইদহ হরিনাকুন্ডুবাসী তাকেই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হিসেবে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করে প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করবেন।

 

সমি সিদ্দিকী সাথে নিয়মিত বিভিন্ন সভা সমাবেশে উপস্থিত থাকছেন ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুল খালেক, সাংগঠনিক সম্পাদক অশোক ধর,সদস্য আহাদুর রহমান খোকন, হরিনাকুন্ডু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হোসাইন, জেলা যুবলীগের অন্যতম সদস্য বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বাসের আলম সিদ্দিকী, চাঁদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল হোসেন, জোড়াদহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বাবু,দোগাছি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া কাজল, পদ্মাকর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিকাশ বিশ্বাস, ঝিনাইদহ জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক রাজু আহমেদ, উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সাবেক আহবায়ক ইব্রাহিম খলিল রাজাসহ ছাত্রলীগ, যুবলীগ, শ্রমিক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীবৃন্দ।

পুরোনো সংখ্যা

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১