সর্বশেষ :

৪০ বছরে যা হয়নি, তা হয়েছে আইনমন্ত্রীর হাত ধরে : বীর মুক্তিযোদ্ধা কবির আহমদ খান


লিয়াকত মাসুদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রতিনিধি
প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ৫, ২০২৩ । ৭:১৭ অপরাহ্ণ
৪০ বছরে যা হয়নি, তা হয়েছে আইনমন্ত্রীর হাত ধরে : বীর মুক্তিযোদ্ধা কবির আহমদ খান

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার খাড়েরা ইউনিয়নে সাবেক চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা কবির আহম্মদ খান ইউনিয়নে ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। এই ইউনিয়নে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার দেশ পরিচালনার সময় যে উন্নয়ন হয়েছে তার বিন্দু মাত্র উন্নয়ন মূলক কাজ বিগত কোন সরকারের আমলে হয়নি। ইউনিয়নে রাস্তঘাট নির্মাণ, বিভিন্ন সামাজিক ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভবন নির্মাণ, শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ সহ বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কাজ করেছেন। এই জন্যই জনসাধারণের মন্তব্য সাবেক এ চেয়ারম্যান উন্নয়নের রূপকার বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব কবির আহম্মদ  খান ।

সাবেক খাড়েরা  ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রতিবেদককে একান্ত সাক্ষাতকারে বলেন, এ ইউনিয়নে দেশ রত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বধীন আ.লীগ সরকার দেশ পরিচালনার সময় যে উন্নয়ন হয়েছে। মাননীয় সংসদ সদস্য আইনমন্ত্রী আনিসুল হক উপজেলা চেয়ারম্যান রাসেদুল হক কাউসার জীবন ভাইয়ের সহযোগিতায় আমি এলাকার ব্যাপক উন্নয়ন কাজ করে ছিলাম। প্রতিটি ওয়ার্ডের রাস্তায় ইটের সলিং, প্রাথমিক বিদ্যালয় নতুন ভবন বাউন্ডারি বিদ্যালয়ের ওয়াশ ব্লক ক্স বিশুদ্ধ পানির স্থাপন, নতুন নতুন রাস্তা নির্মান রাস্তা পাকা করণ, ড্রেন নির্মাণ ই সেবা কেন্দ্রে আধুনিক সরঞ্জাম প্রদান, ব্রীজ নির্মাণ, বিভিন্ন উন্নয়ন মুলক কাজ তার উদ্যোগে হয়েছে। আর্সেনিক মুক্ত টিউবয়েল স্থাপন। এলাকায় ব্যাপক উন্নয়নের পাশাপাশি ইউনিয়নের বিভিন্ন মসজিদ, মন্দির মাদরাসা, ঈদগাহ ও কবর স্থানে ব্যাপক অনুদান প্রদানের মাধ্যমে তিনি এলাকাবাসির কাছে ইউনিয়নের রুপকার হিসাবে নিজের অবস্থান করে নিয়েছিলেন। মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত করে যাচ্ছি এবং আধুনিক ইউনিয়ন রূপান্তরিত করার জন্য ভবিষ্যতে এই উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকবে। এই উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখতে হলে প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করতে হবে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা কবির আহম্মদ খান চেয়ারম্যান বলেন, জনগণ আমাকে গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ভোট দিয়েছেন। এলাকাবাসি আমাকে ভোট দিয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত করেছিলেন। আমি আমার ইউনিয়নকে মাদকমুক্ত একটি আধুনিক পরিকল্পিত শিক্ষাবান্ধব একটি মডেল ইউনিয়ন গড়ে তুলতে কাজ করে ছিলাম। এজন্য অসহায় মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়ে তাদের কষ্ট এবং বিভিন্ন সামাজিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে খুব কাছ থেকে সাধারন মানুষের সমস্যা সমাধানে করে যাচ্ছি। বিশেষ করে সমাজের অসচ্ছল অসহায় গরিব, বিধবা, বয়স্ক এবং প্রতিবন্ধী মানুষের সহায়তা করে যাচ্ছি। দীর্ঘদিন যাবত রাজনীতি করে এলাকায় সাধারন মানুষের স্বার্থে উন্নয়ন মূলক কাজের সাথে নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছি। করোনা কালিন সময়ে সরকারি বরাদ্বের পাশাপাশি নিজের সামর্থ্য অনুযায়ী গরিব দুঃখী মানুষের পাশে সাহায্য সহযোগিতা করেছি। আওয়ামীলীগ হিসেবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখতে দলের হয়ে এলাকার উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, গত কয়েক যুগ ধরে খাড়েরা বাজারের রাস্তাটি অবহেলায় অযত্নে পড়েছিল খাড়েরা বাজারের এ রাস্তাটির প্রায় এক কোটি দশ লক্ষ টাকা চৌকিদার বাড়ি থেকে খাড়েরা বাজারে ব্যবস্থা করা হয়েছে শিকারপুর থেকে দেলী ঈদগাঁ মাঠ পর্যন্ত নতুন রাস্তা মাটি ভরাট করা হয়েছে, খেওড়া রাস্তার সাথে সংযুক্ত করা হয়েছে এবং যত পুরাতন রাস্তা ছিল সবগুলো সংস্কার হয়েছে। ইউনিয়নে একটি ভূমি অফিস ছিল না ভূমি অফিসে নতুন ভবন করা হয়েছে।

পুরোনো সংখ্যা

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১