সর্বশেষ :

প্রথমবারের মতো বুয়েটের তিতুমীর হল মহাপুনর্মিলনী


অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশের সময় : নভেম্বর ২৬, ২০২৩ । ৩:৩০ অপরাহ্ণ
প্রথমবারের মতো বুয়েটের তিতুমীর হল মহাপুনর্মিলনী

জমকালো ও উদ্ভাবনী আয়োজনে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হয়েছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) তিতুমীর হল মহাপুনর্মিলনী-২০২৩।

রোববার (২৬ নভেম্বর) এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে বুয়েট।

এতে বলা হয়, শুক্রবার (২৪ নভেম্বর) রাতে বুয়েটের তিতুমীর হল প্রাঙ্গণে এ পুনর্মিলনীর আয়োজন করা হয়। তিতুমীর হলে শিক্ষাজীবন কাটানো দেশ-বিদেশে কর্মরত প্রকৌশলী ও তাদের পরিবারের সদস্যরা পুনর্মিলনীতে মেতে ওঠেন প্রাণের উচ্ছ্বাসে। দিনব্যাপী এ বর্ণাঢ্য আয়োজনে তিতুমীর হলের সাবেক শিক্ষার্থীরা স্মৃতিচারণ করেন।
 
পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় তিতুমীর হলের শিক্ষার্থীদের গৌরবোজ্জ্বল অবদানের কথা তুলে ধরেন সাবেক শিক্ষার্থীরা। তাদের কণ্ঠে ঝরে পড়ে বুয়েট জীবনের স্বপ্নীল দিনগুলোতে ফিরে যাওয়ার আকুতি। এ সময় দেশে ও বিদেশে অবস্থানরত সহপাঠী ও বন্ধুরা নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ, হাসি-কান্না, গল্প ও আড্ডায় মেতে ওঠেন। প্রবীণ ও নবীনদের সম্মিলনে পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানটি পরিণত হয়েছিল একটি আনন্দমেলায়।
 
বেলুন উড়িয়ে ও আনন্দ শোভাযাত্রার মাধ্যমে অনুষ্ঠানটি শুরু হয়। আনন্দ শোভাযাত্রাটি পুরো বুয়েট প্রদক্ষিণ করে। এরপর ছিল খেলাধুলা, স্মৃতিকথা, ম্যাজিক শো, ড্রোন শো, গল্প ও গানের আসর, মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও নৈশভোজের আয়োজন। পাঁচ শতাধিক প্রাক্তন শিক্ষার্থী ও তাদের পরিবার এবং চার শতাধিক বর্তমান ছাত্র পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান একসঙ্গে উপভোগ করেন।
 
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তিতুমীর হলের ১ম ব্যাচের আবাসিক ছাত্র ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ড. শহীদ হোসাইন। সম্মানীয় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বুয়েটের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সত্য প্রসাদ মজুমদার। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বুয়েটের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. আব্দুল জব্বার খান, বুয়েট অ্যালামনাইর মহাসচিব প্রকৌশলী মাহতাব উদ্দিন এবং বুয়েটের ছাত্রকল্যাণ পরিদপ্তরের পরিচালক অধ্যাপক ড. মো. মিজানুর রহমান।
 
তিতুমীর হল অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি প্রকৌশলী আবদুল মুকাতাদির বেলালের সভাপতিত্বে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন তিতুমীর হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আবু সায়েম কাড়াল এবং স্বাগত বক্তব্য দেন তিতুমীর হল অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী কাজী খায়রুল বাশার।
 
ড. শহীদ হোসাইন বলেন, প্রকৌশলী শিক্ষায় বুয়েট বাংলাদেশের সেরা বিদ্যাপীঠ  আর তিতুমীর হলকে আমরা বলি বুয়েটের রাজধানী। জীবনের শেষ বেলায় পৌঁছে আমার মনে হচ্ছে তিতুমীর হলকে আমি দিতে পারিনি কিছুই, কিন্তু অনেক কিছু নিয়েছি এই হল থেকে। আমার চেষ্টা থাকবে আমার জায়গা থেকে যথাসম্ভব তিতুমীর হলের উন্নয়ন ও এই হলের ছাত্রদের মেধাবৃত্তিক বিকাশে পাশে থাকার।
 
এ সময় তিতুমীর হল অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের একটি বেনেভোলেন্ট ফান্ড গঠন করার পরামর্শ দেন শহীদ হোসাইন।
 
বুয়েটের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সত্য প্রসাদ মজুমদার বলেন, বুয়েটের ছাত্র এবং অ্যালামনাইরা সবাই অলরাউন্ডার, তারা যেমন দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় নেতৃত্ব দিচ্ছেন একইভাবে সারা পৃথিবীর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও গবেষণায় তারা নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তিতুমীর যেমন বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনে শহীদ হয়েছেন, তেমনি তিতুমীর হলের ছাত্ররাও স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহন করে শহীদ হয়েছেন।
 
বুয়েট বর্তমানে গবেষণায় জোর দিচ্ছে জানিয়ে তিনি আরও বলেন, অ্যালামনাইদের উদ্যোগে গবেষণা ফান্ড গঠন করা হলে বিশ্ববিদ্যালয় উপকৃত হবে। আমরা চাই অ্যালামনাই’রা তাদের ভূমিকা পালন করুক, আমাদের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চভাবে সাহায্য করব।
 
বুয়েটের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. আব্দুল জব্বার খান বলেন, আমরা এখন ফেলোশিপ দিচ্ছি যেটি বুয়েটে আগে কখনো ছিল না। আমরা স্নাতক পর্যায়ের গবেষণাকে আরও অনুপ্রাণিত করার জন্য ‘রিসার্চ ফান্ডিং’ দিচ্ছি। ইন্ডাস্ট্রি-একাডেমিয়া সহযোগিতা আরও বাড়াতে গত আড়াই বছরে ৭০টিরও বেশি ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।
 
তিতুমীর হল বুয়েটের নয়টি আবাসিক হলের মধ্যে একটি হল। ১৯৬৬ সালে প্রতিষ্ঠিত এই হলের নামকরণ করা হয় বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনের বীর সেনানী শহীদ তিতুমীর নামে। ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান ও মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাসে ওতোপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে তিতুমীর হলের নাম। পাকবাহিনীর সঙ্গে সম্মুখসমরে এই হলের নয়জন ছাত্র শহীদ হন। প্রতিষ্ঠার পর থেকে তিতুমীর হলের প্রায় ৪ হাজার আবাসিক ছাত্র ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করে দেশে-বিদেশে কর্মক্ষেত্রে অনবদ্য অবদান রেখে চলেছেন। 

সূত্র: স/টি

পুরোনো সংখ্যা

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০